অভিস্রবণ কাকে বলে?


Loading...


দুইটি ভিন্ন ঘনত্ব বিশিষ্ঠ দ্রবণ যদি একটি অর্ধভেদ্য পর্দা দ্বারা আলাদা করা থাকে , তাহলে কম ঘনত্বের দ্রবণ থেকে অধিক ঘনত্বের দ্রবণের দিকে দ্রাবক অনুর স্থানান্তরিত হওয়ার প্রক্রিয়াকে অভিস্রবণ বলে। এই অভিস্রবণ প্রক্রিয়া চলতে থাকে যতক্ষন না পর্যন্ত দুইটা দ্রবণের ঘনত্ব সমান হচ্ছে। আর এই অভিস্রবন শুধু মাত্র তরলের ক্ষেত্রে হয়। এই অভিস্রবণ এক প্রকার ব্যাপন। কিসমিস ভিজিয়ে রাখলে ফুলে উঠার কারণ অভিস্রবণ।

এই অভিস্রবণ  কোন শক্তি প্রয়োগ ছাড়াই ঘটে। অর্থাৎ এর জন্য কোনো শক্তির দরকার হয় না।
অভিস্রবণ সাধারণত দুই প্রকার। একটা হল অন্তঃ অভিস্রবণ আরেকটা হল বহিঃ অভিস্রবণ।
যদি অর্ধভেদ্য পর্দা ভেদ করে তরল কোষের ভিতরে যায় তাইলে তাকে বলে অন্তঃ অভিস্রবণ। আর যদি  অর্ধভেদ্য পর্দা ভেদ করে তরল বের হয়ে যায় তাইলে তাকে বলে বহি:অভিস্রবণ।
অভিস্রবণ ঘটার মুল কারণ হল অভিস্রবণিক চাপ।



Leave a Comment

Your email address will not be published.